বিচরণ দেশজুড়ে, নজর ব্যাংকে ব্যাংকে

গ্রাহক সেজে ব্যাংকের ভেতরে একজন, দামি গাড়ি নিয়ে বাইরে অন্যরা। ব্যাংক থেকে টার্গেট ব্যক্তি বের হলেই তাকে জোর করে গাড়িতে তুলে টাকা ছিনতাই করে ওরা।

দুর্ধর্ষ এই ছিনতাই চক্রের মূলহোতাসহ সাতজনকে ধরার পর পুলিশ জানিয়েছে, ওদের দলে রয়েছে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞও।

তার সহায়তায় অপরাধ লুকাতে ব্যবহার করতো মোবাইল নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর পাল্টানোর সুবিধা- এম/এন/পি সার্ভিসসহ বিভিন্ন প্রযুক্তি।

সাম্প্রতিক ঘটনা- ঢাকার আজিমপুরে উত্তরা ব্যাংকের শাখায় ঢুকছে ছিনতাই চক্রের এক সদস্য। টাকা উত্তোলনকারীদের খোঁজে এদিক-ওদিক ঘোরাঘুরি।

টার্গেট চূড়ান্ত হলে একটু আড়ালে থেকে টাকা উত্তোলনকারীকে অনুসরণ। কিছুক্ষণ পর তিন লাখ বিশ হাজার টাকা তুলে ব্যাংক থেকে বেরিয়ে আসেন টার্গেট ব্যক্তি।

বাইরে গাড়ি নিয়ে অপেক্ষায় থাকা বাকি সদস্যদের কাছে সে খবর দিয়ে বেরিয়ে পড়ে ছিনতাইকারীও।

এবার টার্গেট ব্যক্তিকে জোর করে গাড়িতে তুলে রওনা দেয় ছিনতাইকারীরা। চলে যায় দূরের শহরে। তারপর টাকা রেখে ছেড়ে দেয় ভুক্তভোগীকে।

গেল ১২ই জানুয়ারি, এ ঘটনার তদন্তে নেমে ঘটনার মূলহোতাসহ সাতজনকে ধরেছে পুলিশ। তাদের কাছে পাওয়া গেছে নগদ টাকা, মোবাইলের সিম, খেলনা পিস্তল, বিভিন্ন বাহিনীর পোশাক, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী পরিচয়ে ভুয়া আইডি কার্ড। পুলিশ বলছে, সারাদেশেই ছিনতাই-ডাকাতিতে জড়িত এই চক্রটি ।

ঢাকা মহানগর পুলিশের লালবাগ বিভাগের উপ কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, “ঢাকার বাইরেও বিভিন্ন জায়গায় তাদের নামে মামলা আছে। তাদের বিরুদ্ধে সব মামলাই ক্রাইম এগেইন্সট প্রপার্টি।

তারা সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে যেন দায় এড়াতে পারে তাদের কাছে এমন কিছু কার্ডও পাওয়া গেছে।”

ছিনতাইয়ে সব সময়ই এলিয়ন, মিৎসুবিশিসহ নামিদামি ব্র্যান্ডের গাড়ি ব্যবহার করতো চক্রটি।

সাত সদস্য ধরা পড়লেও চক্রটির অন্তত ১৭ সদস্য চিহ্নিত হয়েছে। এরমধ্যে আছে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞও। তার সহায়তায় অপরাধ ঢাকতে প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে ছিনতাইকারীরা।

বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, “আমরা এই চক্রের একজনকে পেয়েছি যার আইটি সম্পর্কে ভাল জ্ঞান আছে। যিনি এসব কাজে ব্যবহৃত সিমগুলোর আইএমই পাল্টিয়ে এবং সিম সাপলাই দিয়ে তাদের সহযোগীতা করে।”

অপরাধ নিয়ন্ত্রণে এবার সব মোবাইল অপারেটরের কাছে এম/এন/পি সার্ভিস ব্যবহারকারীদের তালিকা চেয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন … 

মতামত দিন