'বিডি ফ্রি প্রেস' বাংলাদেশের প্রথম সংবাদ সংযোগকারী ব্লগ

মূলপাতা বাংলাদেশ

বাংলাদেশকে দেওয়া সামরিক সহায়তা ব্যয়ের বিস্তারিত তথ্য চায় যুক্তরাষ্ট্র


বিডি ফ্রি প্রেস ডেস্ক প্রকাশের সময় :২৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ৮:৪৭ : পূর্বাহ্ণ

যুক্তরাষ্ট্র প্রতি বছর সামরিক অনুদান হিসেবে বাংলাদেশকে কোটি কোটি টাকা দিয়ে থাকে। এ পর্যন্ত সামরিক খাতে যুক্তরাষ্ট্র যে সহায়তা দিয়েছে তা কোথায়, কীভাবে ব্যয় হয়েছে তার তথ্য চেয়েছে বাইডেন প্রশাসন।

এজন্য বাংলাদেশ সরকারকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে ওই দেশ। ঢাকার একাধিক কূটনৈতিক সূত্র গনমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

অর্থাৎ মার্কিন অনুদান কোন বাহিনী পায় এবং কীভাবে ব্যয় হয়, সে সম্পর্কে তাদেরকে বিস্তারিত তথ্য সরবরাহ করতে হবে। একই সঙ্গে পরবর্তীতে অনুদান পেতে ঢাকাকে এ সংক্রান্ত নতুন একটি চুক্তিতে সই করতে হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক গনমাধ্যমকে বলেন, ‘বাংলাদেশের সার্বিক নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করার জন্য বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা রয়েছে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এটি জোরদার করা একটি স্বাভাবিক ঘটনা।’

সূত্র বলছে, প্রতি বছর বাংলাদেশকে বিরাট অঙ্কের সামরিক অনুদান দেয় যুক্তরাষ্ট্র। এটি বিভিন্ন বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ব্যয় হয়।

কিন্তু এই অর্থ কোন বাহিনী পায় এবং কীভাবে ব্যয় হয়, সে সম্পর্কে তাদেরকে কোনও তথ্য দেওয়া হয় না।

এখন যুক্তরাষ্ট্র জানতে চাচ্ছে— তাদের দেওয়া অনুদানের অর্থ কোন বাহিনী পাচ্ছে এবং তারা কীভাবে ব্যয় করছে।

এ বিষয়ে একটি চুক্তি সইও করতে চায় মার্কিন সরকার। এজন্য বাংলাদেশ সরকারকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে ওই দেশ।

মার্কিন তাগিদপত্র পাওয়ার পর এ বিষয়ে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে চলতি মাসের মাঝামাঝিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক দফা বৈঠক হয়েছে।

আগামী সপ্তাহে এ নিয়ে আরেকটি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, বিদেশে সামরিক অনুদান প্রদান বিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রের একটি আইনে বাইডেন প্রশাসন সংশোধনী এনেছে, যেখানে বলা হয়েছে কোনো দেশের নিরাপত্তা সংস্থা বা বাহিনী যদি নির্যাতন, আইনবহির্ভূত হত্যা, গুম ও ধর্ষণজনিত কোনও অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকে, তবে ওই সংস্থাকে অনুদান দিতে পারবে না মার্কিন সরকার।

এক্ষেত্রে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে-এমন কোনও সংস্থা বা বাহিনীও যুক্তরাষ্ট্রের অনুদান পাবে না।


মতামত দিন

আরও খবর