বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর হত্যা, আটক ৩

রাজধানীতে বেসরকারি ইউল্যাব বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ ওঠেছে।

এই ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা করেছেন।

পুলিশ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে। তারা সবাই ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।

সূত্রে জানা গেছে, তরুণীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ এনে রবিবার রাতে মোহাম্মদপুর থানায় এই মামলা দায়ের করেন তার বাবা।

সূত্র আরও জানায়, শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) ওই তরুণী এক যুবকের সঙ্গে রেস্টুরেন্টে গিয়ে শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে তরুণীটি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় একটি বাসায় নিয়ে আসেন ওই যুবক।

ভিকটিমের অবস্থা ধীরে ধীরে খারাপ হতে থাকলে তাকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার সকালে তরুণীর মৃত্যু হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, তরুণী অসুস্থ হয়ে পড়লে একটি বাসায় নিয়ে গিয়ে আবারো ধর্ষণ করা হয়। তখন বেশি অসুস্থ হয়ে গেলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার মৃত্যু হয়।

এটাকে ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ড হিসেবে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ জানিয়েছেন, এই ঘটনায় মামলার পর এখন পর্যন্ত অভিযুক্ত যুবকসহ আরও দুজনকে আটক করা হয়েছে।

মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা আছে। পরে বিস্তারিত জানানো সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের শুরুতে রাজধানীর কলাবাগান থানা এলাকায় একটি বাসায় ডেকে নিয়ে রাজধানীর একটি নামকরা ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ‘ও’ লেভেলের এক ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ ওঠে। সেই ঘটনাটি দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করে।

সূত্র-  ঢাকা টাইমস

বিজ্ঞাপন

মতামত দিন