'বিডি ফ্রি প্রেস' বাংলাদেশের প্রথম সংবাদ সংযোগকারী ব্লগ

মূলপাতা পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

কুয়াকাটা ও সীতাকুণ্ডে একের পর এক ভেসে এলো মৃত ডলফিন, সংরক্ষণে উদ্যোগ নেই


প্রকাশের সময় :২০ আগস্ট, ২০২১ ৫:৫৭ : অপরাহ্ণ

মৃত ডলফিনচট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের উপকূলীয় এলাকা থেকে শুক্রবার (২০ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে মৃত ডলফিন উদ্ধার করেছে বন বিভাগ।

এদিকে, আজ শুক্রবার (২০ আগস্ট) সকালে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সৈকতের গঙ্গামতি স্পটে আরও একটি মৃত ডলফিন ভেসে এসেছে।  এ নিয়ে চলতি মাসেই কুয়াকাটা সৈকতের বিভিন্ন স্থানে মোট চারটি মৃত ডলফিন ভেসে এসেছে।

ডলফিনটির শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। জেলেদের জালে আটকে ডলফিনটি মারা গেছে; এমনটা ধারণা করে কলাপাড়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা অপু সাহা বলেন, প্রাথমিকভাবে ডলফিনটিকে ইরাবতি প্রজাতির বলে ধারনা করা হচ্ছে। ডলফিনটিকে স্থানীয়দের মাটিচাপা দিতে বলা হয়েছে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় আট ফুট দীর্ঘ এ ডলফিনটিকে কলাপাড়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তার নির্দেশে কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্যরা সৈকতে মাটি চাপা দেয়।

মৎস্য কর্মকর্তা অপু সাহা আরও জানান, এর আগে গত ৯ আগস্ট দুটি ও ৩ আগস্ট একটি মৃত ডলফিন জোয়ারের পানিতে কুয়াকাটা সৈকতের পশ্চিম দিকের খাজুরা এলাকায় ভেসে আসলে সেগুলোকেও মাটি চাপা দেয়া হয়।

অন্যদিকে, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের উপকূলীয় বন বিভাগের বিট অফিসার এইচ এম জলিলুর রহমান বলেন, টহল দেওয়ার সময় তীব্র দুর্গন্ধ পেয়ে বন কর্মকর্তারা খুঁজতে থাকে। এক পর্যায়ে সাড়ে ছয় ফুট লম্বা মৃত ডলফিন খুঁজে পায়।

আমরা ডলফিনটি মাটিচাপা দিয়েছি। ডলফিনের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন ছিল না বলে জানান, জলিলুর রহমান।

সৈকতে ভেসে আসা মৃত ডলফিন সংরক্ষণে উদ্যোগ নেই

সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসছে একের পর এক মৃত ডলফিন। এসব সামুদ্রিক প্রাণী কী কারণে মারা যাচ্ছে তার কারণ অনুসন্ধান না করেই মাটি চাপা দেয়া হয়।

তবে সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের সঙ্গে জড়িতদের দাবি, ডলফিন সংরক্ষণে মৃত ডলফিনের ময়নাতদন্ত করা প্রয়োজন।

কেননা ডলফিনের মৃত্যুর কারণ জানা গেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া সহজ হবে।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে চলতি বছরের ৭ আগস্ট একটি এবং ৯ আগস্ট দুটি মৃত ডলফিন ভেসে আসে। এর আগে গত ৯ মে একটি এবং ১০ মে দুটি ডলফিন সৈকত এলাকায় ভেসে আসে। এ নিয়ে ২০২১ সালে মোট ছয়টি ডলফিন ভেসে এলো।

গতবছর সমুদ্র সৈকতে বিভিন্ন সময় সাতটি ডলফিন এবং একটি তিমি ভেসে এসেছিল।

তবে সবগুলো জলজ প্রাণীই ময়নাতদন্ত ছাড়া মাটি চাপা দেয়া হয়। ফলে কী কারণে সামুদ্রিক প্রাণীগুলো মারা যাচ্ছে তা অজানাই থেকে যাচ্ছে।

এ কারণে ডলফিন সংরক্ষণে দাবি তুলেছেন উপকূলের পরিবেশ নিয়ে কাজ করা ব্যক্তি ও সংগঠনগুলো।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০২০ পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ডলফিনের মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধান এবং করণীয় নির্ধারণে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল।

সেই কমিটি ডলফিনের মৃত্যুর জন্য পাঁচটি কারণ চিহ্নিত করে এবং জলজসম্পদ সংরক্ষণে কুইক রেসপন্স টিম গঠনসহ বেশ কিছু সুপারিশ করে। ওই বছরের ৩১ আগস্ট তদন্ত প্রতিবেদনও দাখিল করেন তারা।

ওই তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব ও পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্যাহ বলেন, পাঁচটি কারণে ডলফিনের মৃত্যু হতে পারে।

সেগুলো হচ্ছে মেকানাইজড ভ্যাসেলের বেহুন্দি জালে আটকা পড়া, মেকানাইজড জাহাজের ফ্যানে আঘাতপ্রাপ্ত হওয়া, অনান্য রাক্ষুসে সামুদ্রিক প্রাণীর আক্রমণ, সামুদ্রিক দুষণ এবং প্রাকৃতিক কারণ।

পটুয়াখালী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ধারণা করা হচ্ছে, জেলেদের জালে আটকা পড়ে এসব ডলফিন মারা যেতে পারে।

ডলফিন কিংবা সামুদ্রিক প্রাণীর মৃত্যুর কারণ নির্ধারণে কুয়াকাটায় একটি গবেষণা কেন্দ্র এবং জাদুঘর স্থাপনের বিষয়ে একটি প্রকল্প তৈরি করা হচ্ছে।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে বিভিন্ন সময় ভেসে আসা মৃত মাছসহ জলজ প্রাণীগুলো একটি অ্যাকুরিয়াম কিংবা জাদুঘরে সংরক্ষণের উদ্যোগ নিলে তা দেশের মৎস্য সম্পদ উন্নয়নে গবেষণার পাশাপাশি পর্যটকদের আকৃষ্ট করতেও ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।


মতামত দিন

আরও খবর